ঢাকা,  সোমবার
২২ এপ্রিল ২০২৪

Advertisement
Advertisement

শুদ্ধরূপে মাতৃভাষায় কথা বলা সুন্নত

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ১১:১৪, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শুদ্ধরূপে মাতৃভাষায় কথা বলা সুন্নত

মাতৃভাষা

মাতৃভাষা মানেই হচ্ছে মায়ের ভাষা। শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর মা-বাবা, আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর কাছ থেকে যে ভাষা শোনে এবং কথা বলে, সেটিই মাতৃভাষা। মায়ের ভাষায় কথা বলা মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি। ইসলাম মায়ের প্রতি যেমন অকৃত্রিম শ্রদ্ধাবোধ শেখায়, তেমনি মাতৃভাষার প্রতিও অত্যধিক গুরুত্ব দেয়।

আল্লাহ তার প্রত্যেক রাসুলকে তার নিজের মাতৃভাষায় আসমানি প্রত্যাদেশ দিয়ে পাঠিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি প্রত্যেক রাসুলকেই তাঁর স্বজাতির ভাষাভাষী করে পাঠিয়েছি, তাদের কাছে (ধর্মকে) পরিষ্কারভাবে ব্যাখ্যা করার জন্য।’ (সুরা ইবরাহিম: ৪) তাই দেখা যায়, হজরত মুসা (আ.)-এর সম্প্রদায় ইবরানি বা হিব্রু ভাষায় কথা বলত, ফলে তাওরাত নাজিল হয়েছিল হিব্রু ভাষায়। হজরত ঈসা (আ.)-এর সম্প্রদায় কথা বলত সুরিয়ানি ভাষায়, ফলে ইঞ্জিল নাজিল হয়েছিল সুরিয়ানি ভাষায়। একইভাবে হজরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন আরবি ভাষী, তাই তাঁর ওপর নাজিলকৃত কিতাব পবিত্র কোরআনের ভাষাও আরবি।

মাতৃভাষায় কথা বলা তার মৌলিক অধিকার। ফলে এটা তার অস্থিমজ্জা, রক্ত-মাংসের সঙ্গে নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত। পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়েছে, ‘দয়াময় আল্লাহ। তিনিই শিখিয়েছেন কোরআন। তিনিই সৃষ্টি করেছেন মানুষ। তিনিই তাকে শিখিয়েছেন ভাব প্রকাশ করা।’ (সুরা রহমান: ১-৪) আয়াত থেকে জানা যায়, মানুষ সৃষ্টির সঙ্গে ভাষার গভীর সম্পর্ক রয়েছে। তাই মাতৃভাষা মানুষের সৃষ্টিগত অধিকার।

পৃথিবীতে ৭ হাজারের অধিক ভাষা রয়েছে। বিচিত্র এসব ভাষায় বিভিন্ন জাতি, ধর্ম, বর্ণ ও অঞ্চলের মানুষ কথা বলে। এ ভাষাগুলোই প্রতিটি জনগোষ্ঠীর জন্য তাদের মাতৃভাষা। আর এর মধ্যে রয়েছে প্রজ্ঞাময় স্রষ্টার বিশেষ রহস্য। এ-সম্পর্কে মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে এরশাদ করেন, ‘আর তাঁর নিদর্শনাবলির মধ্যে রয়েছে মহাকাশ ও পৃথিবীর সৃষ্টি এবং তোমাদের ভাষা ও বর্ণের বৈচিত্র্য। নিশ্চয়ই জ্ঞানীদের জন্য এতে রয়েছে নিদর্শন।’ (সুরা রুম: ২২)

যত্নসহ ভাষা লালন তথা শুদ্ধভাবে জানা এবং চর্চা করা মাতৃভাষার গুরুত্বের অপরিহার্য দাবি। শুদ্ধভাবে মাতৃভাষা বলতে ও লিখতে পারা যেকোনো সচেতন নাগরিকের কর্তব্য। আর মানুষকে আল্লাহর পথে ডাকার ক্ষেত্রে শুদ্ধ ভাষায় কথা বলার বিকল্প নেই। আল্লাহ তাআলা যখন হজরত মুসা (আ.)-কে ফেরাউনের কাছে দাওয়াত নিয়ে যেতে বললেন, তখন শুদ্ধভাষী ও বাগ্মী সহোদর হজরত হারুন (আ.)-কে তিনি সহযোগী হিসেবে চেয়েছিলেন। এরশাদ হয়েছে, ‘আর আমার ভাই হারুন, সে আমার চেয়ে স্পষ্টভাষী, তাই তাকে আমার সঙ্গে সাহায্যকারী হিসেবে পাঠান, সে আমাকে সমর্থন করবে।’ (সুরা কাসাস: ৩৪)

শুদ্ধভাবে কথা বলা মহানবী (সা.)-এর অনুপম সুন্নত। শৈশবে তিনি শুদ্ধ ভাষাভাষী বনু সাদ গোত্রের বিবি হালিমার ঘরে প্রতিপালিত হন। বিভিন্ন জাতি ও গোত্রের ভাষা বোঝা এবং তাদের ভাষায় ইসলামের দাওয়াত দিতে মহানবী (সা.) উদ্বুদ্ধ করেছেন। সাহাবিদের মধ্যে অনেকেই আরবি ছাড়া একাধিক ভাষা জানতেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) সাহাবি জায়েদ ইবনে সাবিত (রা.)-কে সুরিয়ানি ভাষা তথা ইহুদিদের ভাষা (হিব্রু) শেখার নির্দেশ দেন এবং তিনি অল্প সময়ে এ ভাষা আয়ত্ত করেন।’ (তিরমিজি: ২৭১৫; মিশকাত: ৪৬৫৯)

রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর মাতৃভাষা ছিল আরবি। তিনি সারা জীবন মাতৃভাষায় একটি অশুদ্ধ বাক্য উচ্চারণ করেননি; বরং অন্যদের মাতৃভাষা শুদ্ধভাবে শেখার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। কখনো কখনো যুদ্ধবন্দীদের দিয়ে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ভাষাজ্ঞান শেখানোর ব্যবস্থা করেছেন। সিরাতের কিতাবে এসেছে, ‘একজন বন্দী ১০ জন শিশুকে লেখাপড়া ও হস্তলিপি শেখালে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হবে।’ (আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া: ৩ / ৫৬৯)

Advertisement
Advertisement

Notice: Undefined variable: sAddThis in /mnt/volume_sgp1_05/p1kq0rsou/public_html/details.php on line 531