ঢাকা,  বৃহস্পতিবার
১৩ জুন ২০২৪

Advertisement
Advertisement

টানা দ্বিতীয় হারের স্বাদ পেল বার্সা

প্রকাশিত: ০৮:৫০, ২৪ মে ২০২৩

টানা দ্বিতীয় হারের স্বাদ পেল বার্সা

বার্সা

লা লিগার চ্যাম্পিয়ন ট্রফি হাতে পাওয়ার চারদিন যেতে না যেতেই টানা দুটি ম্যাচে হার দেখেছে কাতালান ক্লাবটি। এর আগের পরাজয়ের ম্যাচটি ছিল জাভি হার্নান্দেজদের কাছে লিগের ট্রফি হস্তান্তরের আগমুহূর্তে। কিন্তু তাই বলে রেলিগেশনের ঝুঁকিতে থাকা রিয়াল ভায়াদোলিদের কাছে হেরে যাবে!

মঙ্গলবার (২৩ মে) ভায়াদোলিদের মাঠে খেলতে নামার আগে বর্ণবাদী আচরণে বিরুদ্ধের প্রতিবাদ জানান দুদলের ফুটবলাররা।

শুরু থেকেই নড়বড়ে ডিফেন্স ছিল বার্সার। তাই হয়তো সহজেই জালে বল জড়িয়েছে স্বাগতিকরা। ম্যাচের মাত্র ৮২ সেকেন্ডের মাথায় গোল পেয়ে যায়। আগেই তিন গোলে পিছিয়ে থাকা বার্সা শেষদিকে গিয়ে কেবল একটু ব্যবধান কমায়। যা লা লিগায় টিকে থাকার আশা বাঁচিয়ে রেখেছে ভায়াদোলিদের।

গত ১৪ মে এস্পানিওলকে হারিয়ে তিন মৌসুম পর জাভির দল শিরোপা নিশ্চিত করে। এর ১০ দিনের ভেতর তাদের গোলক্ষুধা জয়ের তাড়না কমে হারতে হয়েছে পরবর্তী দুটি ম্যাচে। ম্যাচের দুই মিনিট না যেতেই বার্সা ডিফেন্ডার আন্দ্রেয়াস ক্রিস্টেনসেন আত্মঘাতি গোল করে বসেন। আন্দ্রে টের স্টেগানের কিছুই করার ছিল না। মূলত প্রতিপক্ষ ফুটবলারের শট ফেরাতে গিয়েই ক্রিস্টেনসেনের তৈরি করা এমন দৃষ্টিকটু মুহূর্তের স্বাক্ষী হয় সফরকারীরা।

কিন্তু এরপর আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে ভায়াদোলিদ। পরের ১০ মিনিটে আরও কয়েকটি ভালো আক্রমণ করে বসে তারা। বার্সেলোনা প্রথম উল্লেখযোগ্য আক্রমণ শাণাতে পারে। কিন্তু রাফিনিয়ার কোনাকুনি শট গোলরক্ষককে এড়াতে পারেনি। উল্টো নতুন চ্যাম্পিয়নদের স্তব্ধ করে দিয়ে ২২তম মিনিটে স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন কাইল ল্যারিন। ডি-বক্সে গনজালো প্লাতাকে বার্সেলোনা ডিফেন্ডার এরিক গার্সিয়া ফাউল করলে স্বাগতিকরা পেনাল্টি পায়।

তবে দুই গোল খাওয়ার পর মনে হয়েছিল কিছুটা হুশ ফেরে বার্সার। এরপর যেন তেতে ওঠে পরপর দুই মিনিটে তারা দারুণ সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় তা রুখে দেন জর্ডি মাসিপ। গোলরক্ষক প্রথমে ৩১তম মিনিটে ক্রিস্টেনসেনের জোরালো হেড ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ফেরান। ওই কর্নারের ফলশ্রুতিতে রবার্ত লেভান্ডফস্কির শটও মাসিপ একইভাবে ঠেকিয়ে দেন।

পরের অর্ধেও ভায়াদোলিদ খেলতে থাকে আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে। একের পর এক আক্রমণে চেষ্টা করতে থাকে গোল ব্যবধান আরও বাড়ানোর। বার্সেলোনা চেষ্টা করেও সুবিধা করতে পারছিল না। ৫৯তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ হতে পারত স্বাগতিকদের। ডান দিক থেকে মাচিসের ক্রস টের স্টেগানকে ফাঁকি দিয়ে দূরের পোস্টে লাগলে বেঁচে যায় বার্সেলোনা।

৭৩তম মিনিটে কাতালোনিয়া শিবিরের ঘুরে দাঁড়ানোর আশা অনেকটাই শেষ হয়ে যায়। দারুণ এক প্রতি-আক্রমণে স্কোরলাইন - করেন প্লাতা। যদিও শুরুতে অফসাইডের বাঁশি বাজান রেফারি, তবে ভিএআরে সিদ্ধান্ত পাল্টে যায়। পাঁচ মিনিট পর আরেকটি সুযোগ পায় ভায়াদোলিদ। তবে লুকাস রোসার শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বাধা পায় পোস্টে। খানিক পর প্লাতার হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

তখন বার্সা নিশ্চিত হারের দিকে আগাচ্ছিল। তবে  ৮৪তম মিনিটে ফ্রেংকি ডি ইয়ংয়ের থ্রু পাস ধরে বক্সে ঢুকে গোলরক্ষককে কাটিয়ে দুরূহ কোণ থেকে শটে বল জালে পাঠান লেভান্ডফস্কি। নাটকীয়তার ইঙ্গিত থাকলেও বাকি সময়ে আর তেমন কিছুই করতে পারেনি কাতালান ক্লাবটি।

৩৬ ম্যাচে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার পয়েন্ট এখন ৮৫। আর ৭২ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। অন্যদিকে রিয়াল মাদ্রিদের পয়েন্ট ৭১। মাদ্রিদের দল দুটি একটি করে ম্যাচ কম খেলেছে।

Advertisement
Advertisement

Notice: Undefined variable: sAddThis in /mnt/volume_sgp1_05/p1kq0rsou/public_html/details.php on line 531