ঢাকা,  সোমবার
২২ জুলাই ২০২৪

Advertisement
Advertisement

পালালেন ভারতীয় প্রেমিক, কারাগারে বাংলাদেশি গৃহবধূ

প্রকাশিত: ১৩:১৪, ২৯ অক্টোবর ২০২৩

পালালেন ভারতীয় প্রেমিক, কারাগারে বাংলাদেশি গৃহবধূ

ভারতে আটক বাংলাদেশি

প্রেমিকের হাত ধরে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ভারতে এসেছিলেন বাংলাদেশি এক বিবাহিত নারী। তারা শুরু করেছিলেন ভালোবাসার সংসার। কিন্তু সংসার স্থায়ী হওয়ার আগেই ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ওই বাংলাদেশি নারীকে।আপাতত কারাগারের চার দেয়ালের মধ্যে বন্দি থাকতে হচ্ছে ওই বাংলাদেশি নারীকে। অন্যদিকে পুলিশি অভিযানের খবরে আগেভাগেই পালিয়ে গেয়েছেন ভালোবাসার প্রেমিক।

এমন ঘটনা ঘটেছে ভারতের ত্রিপুরার ধর্মনগর জেলার ফুলবাটি গ্রামে। পুলিশ জানিয়েছে ভুক্তভোগী বাংলাদেশি নারীর নাম ফাতেমা নুসরাত। ২৪ বছর বয়সী ওই বাংলাদেশি নারী সিলেট জেলার মৌলভীবাজারের বাসিন্দা। তার স্বামীর নাম আব্দুল মুমিন। তিন বছরের এক সন্তানও রয়েছে তাদের।

বাংলাদেশি নারীর প্রেমিক পেশায় একজন গ্রাম্য কবিরাজ। ৩৪ বছর বয়সী নুর জালাল ওরফে সাদ্দামের বাড়ি আসাম-ত্রিপুরা সীমান্তবর্তী এলাকার উত্তর ত্রিপুরার ধর্মনগর মহকুমার পূর্ব ফুলবাড়ী গ্রামে। তার বিরুদ্ধে আগেও একাধিক প্রতারণার মামলা রয়েছে। বিভিন্ন অপকর্মের জন্য সম্প্রতি আগরতলায়  জনতার হাতে তিনি নিগৃহীত হয়েছেন। এলাকায় পশার জমাতে না পেরে নিজের পেশাগত কাজেই মাঝেমধ্যেই তাকে বাংলাদেশে যেতে হতো। আর সেখানেই দুই মাস আগে তার সাথে পরিচয় হয় ফাতেমার, পরে সেই সম্পর্ক গড়ায় প্রেমে।

পুলিশের কাছে নুসরাত জানায় বাংলাদেশে গেলেই মৌলভীবাজারে তার শ্বশুর বাড়িতে যেতেন নূর জালাল এবং প্রায় প্রতিদিনই তাদের দুজনের মধ্যে সাক্ষাৎ হতো। ধীরে ধীরে তাদের সম্পর্ক যখন গাঢ় হয়, তারা স্থির করেন উভয়ই উভয়কে বিয়ে করবেন। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ফাতেমার আগের বিয়ে। স্বাভাবিকভাবে ফাতেমা স্থির করে স্বামী শ্বশুরবাড়ি ছেড়ে প্রেমিকের হাত ধরে ভারতে পালিয়ে এসে বিয়ে করবেন এবং সেখানেই নতুন সংসার পাতবেন। যেমন ভাবা তেমনি কাজ!

সম্প্রতি ভারতীয় প্রেমিকের হাত ধরেই বাংলাদেশ থেকে ভারতের ত্রিপুরায় নূর জালালের পূর্ব ফুলবাড়ী গ্রামের বাড়িতে এসে ওঠেন ফাতেমা। গত প্রায় ১৫ দিনের বেশি সময় ধরে সেখানেই ছিলেন বসবাস করছিলেন তিনি। বিষয়টি পাঁচ কান হতে সময় নেয়নি। নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে গত বুধবার রাতে নূর জালালের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। আটক করা হয় ফাতেমাকে। যদিও পুলিশের চোখকে ফাঁকি দিয়ে গা ঢাকা দেয় নূর জালাল পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে যায়।

এদিকে অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করার অভিযোগে নুসরাতের বিরুদ্ধে ১৪ ফরেনারস আইন, পাসপোর্ট আইনে অভিযোগ দায়ের করা হয়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার স্থানীয় ধর্মনগর মুখ্য বিচার বিভাগীয় আদালতে তোলা হলে ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দেয় উত্তর ত্রিপুরার মুখ্য বিচারক। একই সঙ্গে অভিযুক্ত নূর জালালকে অবিলম্বে খুঁজে বের করার নির্দেশ দেওয়া হয় পুলিশকে।

শুক্রবার চুড়াইবাড়ি থানার কর্মকর্তা সমরেশ দাস জানান 'নূর জালালের বিরুদ্ধে একটি প্রতারণার মামলা করা হয়েছে এবং তাকে ধরতে আমাদের অভিযান চলছে।অভিযুক্ত ব্যক্তি নুর জালাল একজন ভুয়া কবিরাজি চিকিৎসক।

Advertisement
Advertisement

Notice: Undefined variable: sAddThis in /mnt/volume_sgp1_05/p1kq0rsou/public_html/details.php on line 531